[english_date], [bangla_date]

নির্বাচনে রোডম্যাপ সবকিছু নয়

Sunday, 16/07/2017 @ 11:28 am

নিউজ ডেস্ক : প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা বলেছেন, কর্মপরিকল্পনা (রোডম্যাপ) একটি সূচনা দলিলমাত্র। নির্বাচনের পথে এটিই সবকিছু নয়। সংযোজন-পরিমার্জন করে সবার মতামত নিয়ে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য আমরা কাজ করব।
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে রোববার কর্মপরিকল্পনা উন্মোচনের সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।
আগামী দেড় বছরের নির্বাচনী কর্মপরিকল্পনা তুলে ধরে সিইসি বলেন, ‘২০১৯ সালের ২৮ জানুয়ারির আগের ৯০ দিনের মধ্যে একাদশ সংসদ নির্বাচন করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের প্রত্যয় নিয়ে কমিশন কাজ করে যাচ্ছে।’
এ সময় নূরুল হুদা জানান, কর্মপরিকল্পনা তুলে ধরা হলেও নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থেকে ইসির অধীনে প্রশাসনিকসহ সব ধরনের কাজের তদারকি শুরু হবে।
সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘তফসিল ঘোষণার পরই নির্বাচনী আইন-বিধি মেনে আমরা কাজ শুরু করব। এ মুহূর্তে সরকার কীভাবে পরিচালিত হবে কিংবা রাজনৈতিক কর্মপরিবেশের বিষয়গুলো আমাদের এখতিয়ার বহির্ভূত। সরকারের কর্মকাণ্ডে এখন হস্তক্ষেপ করা সমীচীন নয়।’
সিইসি বলেন, ‘আগামী নির্বাচন শুধু সরকার কেন, রাজনৈতিক দল বা যে কোনো দেশি-বিদেশি সংস্থার প্রভাবমুক্ত নির্বাচন হবে, এই নিশ্চয়তা আমরা দিচ্ছি।’
তিনি বলেন, ‘তফসিল ঘোষণার আগ পর্যন্ত কর্মপরিকল্পনার সাতটি অনুষঙ্গ ধরে এগোনো হবে। তফসিলের পর ইসির কাজে কোনো প্রতিবন্ধকতা এলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’
কর্মপরিকল্পনা প্রকাশ উপলক্ষে সংবাদ সম্মেলনে স্বাগত বক্তব্য দেন নির্বাচন কমিশনার কবিতা খানম।
তিনি বলেন, ‘গত ১৫ ফেব্রুয়ারি আমরা শপথ নিয়েছি। এরপর থেকে এখন পর্যন্ত সব কাজ প্রশ্নের ঊর্ধ্বে রেখে করা হয়েছে। ইসির সুচিন্তিত কাজের অংশই আজকের কর্মপরিকল্পনা।’
নির্বাচন কমিশন সচিব মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ্র সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার, রফিকুল ইসলাম, শাহাদত হোসেন চৌধুরী, অতিরিক্ত সচিব মোখলেসুর রহমান প্রমুখ।