কৃষি ও জীবনরাজশাহীসারাদেশ

খুশি লালপুরের ধান চাষীরা, দুশ্চিন্তা কাটিয়ে ভালো ফলনের আশা

সজিবুল ইসলাম লালপুর (নাটোর) প্রতিনিধি

নাটোরের লালপুরে চলতি মৌসুমে পোকার আক্রমণের পরেও আমনের বাম্পার ফলন হয়েছে। বাজারে ধানের দাম ভালো হওয়ায় বিগত সময়ের লোকসান কাটিয়ে ঘুরে দাঁড়াতে পারবেন বলে আশাবাদী ধান চাষীরা।

স্থানীয় কৃষকরা জানান, কয়েক দফা পোকার আক্রমনে কারণে অনেকেই ফলন নিয়ে বেশ চিন্তিত ছিলেন। কিন্তু এবার ধানের ফলন ভালো হওয়ায় কৃষকের দুশ্চিন্তা কেটে গেছে। তাই একদিকে যেমন উৎপাদন ভালো হয়েছে, অন্যদিকে বাজারে দাম নিয়েও আগাম খুশি তারা।

কচুয়া এলাকার ধান চাষী আকতার হোসেন বলেন, ধান পেকে গেছে, আগামী  -একের মধ্যে কাটবো। এবার ফলন অনেক ভালোর দিকে। তাই বিঘা প্রতি ১৫-১৮ মণ ধান উৎপাদন হবে বলে আশা রাখছি।

ধান চাষি আব্দুল করিম বলেন, এবছর ধানে পোকা আক্রমণ করলেও তাতে তেমন ক্ষতি হবে না। কারণ এ বছর ধানের ফলন অনেক ভালো। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে ধানের মাড়াই কাজ শুরু করবো। বাজার দাম ভালো পেলে, বিগত বছরের লোকসান পুষিয়ে উঠতে পারবো।

এদিকে উপজেলা কৃষি বিভাগ বলছে, চলতি মৌসুমে ৭ হাজার ৩১৫ হেক্টর জমিতে রোপা আমন চাষের লক্ষমাত্রা থাকলেও চাষ হয়েছে ৭ হাজার ৯৫০ হেক্টর জমিতে। এই সকল জমি থেকে বিঘা প্রতি ১৪ মন হারে ৩০ হাজার ৭২৩ মেট্রিক টন ধান ও ২১ হাজার ১৩৮ মেট্রিক টন চাল উৎপাদনের লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে ফলন ভালো হওয়ায় এ বছর ধান ও চালের উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে বলে জানায় কৃষি বিভাগ।

লালপুর উপজেলা কৃষি অফিসার রফিকুল ইসলাম বলেন, এবার লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি জমিতে রোপা আমন ধানের আবাদ হয়েছে। কিছুটা মাজরা পোকার আক্রমণ হলেও শেষ পর্যন্ত ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। আশা করা যাচ্ছে কৃষকেরা তাদের বিগত দিনের ক্ষয়ক্ষতি পুষিয়ে নিতে পারবে।

 

এই জাতীয় আরো খবর

Back to top button