বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট, ২০২০

গাইবান্ধার পলাশবাড়ী বন্যা নিয়ন্ত্রন বাধের কয়েকটি স্থানে ধ্বস আতঙ্কে এলাকাবাসী 

The heavy rains of the last few days and the downpour from the upper reaches of the
গত কয়েক দিনের প্রবল বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা ঢলে  গাইবান্ধার নদ নদীর পানি বিপদ সীমার অতিক্রম করে প্রভাবিত হচ্ছে। পানির তীব্র স্রোতে জেলার পলাশবাড়ী উপজেলার করতোয়া  ও আখিরা নদীর উপর নির্মিত বাধের কয়েকটি স্থানে তীব্র ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে।
ফলে আতংকিত হয়ে পরেছে বাঁধ সংলগ্ন এলাকার হাজার হাজার মানুষ। জরুরী ভিত্তিতে বাধ সংস্কার করা না হলে যে কোন মুহুর্ত্তে বাধ ভেঙ্গে বন্যায় প্লাবিত হতে পারে কিশোরগাড়ী হোসেনপুর ইউনিয়নের অর্ধশত  গ্রাম।
সোমবার (১৪ জুলাই)বিকেলে সরেজমিন  বাঁধ এলাকায় গিয়ে দেখাযায়,  কিশোরগাড়ী ইউপির জাইতরবালা ,পশ্চিম নয়ানপুর, দিঘলকান্দি, হোসেনপুর ইউপির কিসমত চেরেঙ্গা এলাকার বেশ কয়েকটি স্থানে ধ্বস দেখা দিয়েছে।
এলাকাবাসী জানান বিগত সময়ে, কোটি টাকা ব্যয়ে মাটির বদলে বালি দিয়ে বাধ নির্মান , নদী খনন কাজে গাফিলতি, নদী থেকে অবৈধ বালু উত্তোলন ও বাধের উপর দিয়ে অতিরিক্ত ট্রাক্টর চালোনোর ফলে আগে থেকেই ঝুকিপুর্ন হয়েছিল বাধের বেশ কিছু অংশ।
সম্প্রতি অতি বৃষ্টি পানির তীব্র স্রোতে করতোয়া  ও আখিরা নদীর উপর নির্মিত বাধের কয়েকটি স্থানে তীব্র ভাঙ্গন দেখা দেওয়ায় জনমনে আতংক সৃষ্টি হয়েছে।
দ্রুত জিও ব্যাগ ফেলে বাধের গুরুত্বপুর্ন  স্থান গুলো সংস্কার করা না হলে যে কোন মহুর্তে বাধ ধ্বসে দুই ইউনিয়নের  প্রায় অর্ধ শতাধিক গ্রাম প্লাবিত হতে পারে। এলাকাবাসীর দাবি অতিদ্রুত এই বাধ সংস্কার করা হোক।
এদিকে গাইবান্ধা ০৩ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য এ্যাড উম্মে কুলসুম স্মৃতি বিষয়টির যথাযথ গুরুত্বারোপ করে  দ্রুত বাধ পরিদর্শন ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য নির্বাহী প্রকৌশলী পানি উন্নয়ন বোর্ডকে নির্দেশ প্রদান করেছেন বলে জানাযায়।
মোঃ শাহরিয়ার কবির আকন্দ/গাইবান্ধা প্রতিনিধি

0Shares