ঢাকাসারাদেশ

টঙ্গীতে সুমি হত্যা মামলার প্রধান আসামী বৃদ্ধ সৈজ উদ্দিন খান গ্রেফতার

মৃণাল চৌধুরী সৈকত সিনিয়র রিপোর্টারঃ টঙ্গীর দত্তপাড়া হাউজ বিল্ডিং এলাকায় প্রেম ও বিয়ের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় দু- সন্তানের জননী স্বপ্না রায় ওরফে ফাতেমা আক্তার সুমি (৩০) কে ছুরিকাঘাতে হত্যা করার ২৫ দিনের মাথায় টঙ্গী পূর্ব থানা পুলিশ তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় প্রধান হত্যাকারী বয়োবৃদ্ধ মো. সৈজউদ্দিন খান (৭০) কে গ্রেফতার করেছে।

বৃহস্পতিবার সকাল ১১ টায় টঙ্গী পূর্ব থানার হলরুমে এক সংবাদ সম্মেলনে
গাজীপুর মেট্রোপলিটন বিভাগের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (অপরাধ দক্ষিন) মো. হাসিবুল আলম জানান, দরিদ্র স্বপ্না রায় ওরফে ফাতেমা আক্তার সুমি ৭/৮ বছর আগে হিন্দু ধর্ম ত্যাগ করে মুসলিম ধর্ম গ্রহন করার পর এলাকার বিভিন্ন মেসে রান্না করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছিলো। ইতিমধ্যে ঝালকাঠি জেলার সদর
থানার নাগপাড়া গ্রামের মৃত তুরাব আলী খানের ছেলে এবং টঙ্গী পূর্ব থানাধীন দত্তপাড়া হাউজ বিল্ডিং এলাকার জনৈক আলমগীরের বাড়ির ভাড়াটিয়া বয়োবৃদ্ধ মো. সৈজ উদ্দিন খান তাকে প্রেম ও বিয়ের প্রস্তাব দেয়। এতে রাজি না হওয়ায় গত ১৬ মে সকাল ৬ টা ৪৫ মিনিটে স্বপ্না রায় ওরফে ফাতেমা আক্তার সুমি বাসা থেকে বেরিয়ে দত্তপাড়ার হাউজবিল্ডিং এলাকায় কাজে যাওয়ার সময় জনৈক শাহাদতের
বাসার সামনে একা পেয়ে সৈজ উদ্দিন ধাঁরালো ছোঁরা দিয়ে উর্যুপরি আঘাত করে পালিয়ে যায়।

পরে স্থানীয় লোকজন সুমিকে হাসপাতালে নেয়ার পর কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষনা করেন। ঘটনার পর টঙ্গী পূর্ব থানা পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শহীদ তাজউদ্দিন আহমেদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান। ঘটনার পর ওইদিন রাতেই সুমির মেয়ে তুলি বাদী হয়ে টঙ্গী পূর্ব থানার
মামলা নং-২২, ধারা-৩০২ পেনাল কোড রজু করে। মামলাটির তদন্তভার দেয়া হয় থানার
এস আই শেখ সজল হোসেনকে। এস আই সজল হোসেন গাজীপুর মেট্রোপলিটন
পুলিশের কমিশনার খন্দকার লুৎফুল কবির, উপ-পুলিশ কমিশনার (অপরাধ দক্ষিন) মোহাম্মদ ইলতুৎ মিশের দিক নির্দেশনায় এবং আধুনিক তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় ২৭ দিনের মাথায় মামলার প্রধান আসামী সৈজ উদ্দিন খানকে মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা থানার গোবিন্দপুর গ্রামের পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে নির্মাণ শ্রমিকের কাজ করা অবস্থায় গ্রেফতার করেন। পরে তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী দত্তপাড়ার ইসলামপুর সাকিনস্থ জনৈক আতাউর রহমানের বাড়ির ভাড়াটিয়া এবং সৈজ উদ্দিনের ছেলে বউ মোছা: জাহানারা বেগমের রান্না ঘরে সেডের উপ থেকে রক্তমাখা ছোঁরা উদ্ধার করেন।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, সহকারী পুলিশ কমিশনার (টঙ্গী জোন) বাবু পিযুষ কুমার দে, টঙ্গী পূর্ব থানার অফিসার্স ইনচার্জ এবং অফিসার্স তদন্তসহ মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এবং থানার অন্যান্য কর্মকর্তাবৃন্দ।

এই জাতীয় আরো খবর

Back to top button