আইন ও আদালতঢাকাসারাদেশ

নারায়ণগঞ্জে জঙ্গি আস্তানায় অভিযান, গ্রেফতার ২

স্টাফ রিপোর্টার: নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলার নোয়াগাঁও এবং বন্দর উপজেলার মদনপুরে পৃথক দুটি জঙ্গি আস্তানায় অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমাণ বোমা তৈরির সরঞ্জাম, বোম্ব, বিস্ফোরক ও আইডিসহ দুই জঙ্গিকে গ্রেফতার করেছে কাউন্টার টেরোরিজম এন্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিট।

রোববার (১১ জুলাই) সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জ আড়াইহাজার উপজেলার নোয়াগাঁও এবং রাত ১টা থেকে ৩টা পর্যন্ত বন্দর থানার মদনপুরে অভিযান পরিচালনা করে সিটিটিসি। জঙ্গি আস্তানায় অভিযানের নেতৃত্ব দেন সিটিটিসি’র প্রধান মো. আসাদুজ্জামান।

গত ১৭ মে (রোববার) নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জের সাইনবোর্ড এলাকায় ট্রাফিক পুলিশ বক্সের সামনে থেকে প্লাস্টিকের ব্যাগের ভেতর শক্তিশালী একটি বোমা উদ্ধার ও বিস্ফোরণ ঘটিয়ে নিষ্ক্রিয় করা হয়। ওই ঘটনা তদন্তে মোটরসাইকেলসহ আব্দুল্লাহ আল মামুন ওরফে ডেবিট কিলারকে গ্রেফতার করা হয়। পরে তাকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, আড়াইহাজারে নোয়াগাঁওয়ে একটি মসজিদের পাশে এক আস্তানায় তৈরি করা হয়। তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে এই অভিযান চালায় সিটিটিসি।

অভিমান শেষে কাউন্টার টেরোরিজম এন্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) এর প্রধান মো. আসাদুজ্জামান বলেন, ‘আমরা প্রথমে আড়াইহাজারের নোয়াগাঁওয়ে অভিযান চালাই। আজ সন্ধ্যা থেকেই এই বাড়িটি ঘিরে রাখা হয়। অভিযান চলাকালে তারা সেকেন্ডারি অ্যাটাকের হুমকি দিয়েছে। সংবাদকর্মীরা যারা আছেন সাবধানে কাজ করবেন। আমরা সবাই সতর্ক থাকবো। এখান থেকে শক্তিশালী তিনটি আইডি উদ্ধার করে নিষ্ক্রিয় করেছি। তাতে বিকট আওয়াজ হয়েছে। এছাড়া বিপুল পরিমান বোমা তৈরির সরঞ্জাম বিস্ফোরক দ্রব্য উদ্ধার করা হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, আমরা এখান থেকে আরও একটি জঙ্গি আস্তানার সন্ধান পেয়েছি ইতোমধ্যেই আমাদের সদস্যরা ওই আস্তানা ঘিরে রেখেছে। এখান থেকে গিয়ে আমরা বন্দর থানার মদনপুরের জঙ্গি আস্তানায় অভিযান চালাবো।

মো. আসাদুজ্জামান মদনপুরের জঙ্গি আস্তানায় অভিযান শেষে বলেন, ‘এখান থেকে মামুনের সহযোগী আবু রায়হান নামে একজনকে রাজধানীর কেরানীগঞ্জ থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সে এই মসজিদের মুয়াজ্জিন ছিলেন। এখানে তারা সপরিবারে থাকতেন কিন্তু কিছুদিন আগে তার পরিবারকে বাড়িতে পাঠিয়ে দিয়েছেন।’

তিনি বলেন, ‘এখান থেকে চারটি রিমোট কন্ট্রোল উদ্ধার করা হয়েছে। তবে এখানে কোন কমপ্লিট আইডি পাওয়া যায়নি। বিপুল পরিমাণ বোম্ব তৈরির সরঞ্জাম আমরা পেয়েছি। আরো জানতে পেরেছি আবু রায়হান বোমা তৈরির প্রশিক্ষক। এরা দুজনেই জঙ্গি সংগঠনের সামরিক সদস্য। তারা বিভিন্ন পয়েন্টে হামলার জন্য এখানে বোমা তৈরি করছিলেন।’

এই জাতীয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button