জাতীয়সাব লিড

শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের হুমকি : চালক ও সহকারী রিমান্ডে

ডেস্ক রিপোর্ট:

বদরুন্নেসা কলেজের শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের হুমকি দেওয়ার ঘটনায় ঠিকানা পরিবহনের চালক মোরুবেল ও হেলপার মো. মেহেদী হাসানের একদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

সোমবার (২২ নভেম্বর) ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট বেগম ইয়াসমিন আরার আদালত শুনানি শেষে এ আদেশ দেন। আদালতের সংশ্লিষ্ট সূত্র ঢাকা পোস্টকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

সূত্র জানায়, এদিন চকবাজার থানার মামলায় তদন্ত কর্মকর্তা আসামিদের আদালতে হাজির করে সাত দিনের রিমান্ডের আবেদন করেন। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিচারক এ আদেশ দেন।

ভুক্তভোগী বদরুন্নেসা কলেজের শিক্ষার্থীর দাবি ছিল, ধর্ষণের হুমকি দিয়েছিল চালক-হেলপার। তবে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তা অস্বীকার করে চালক-হেলপার জানিয়েছে, ‘ধর্ষণের হুমকি দেওয়া হয়নি। হাফ ভাড়া নিয়ে অশোভন আচরণ ও রাগারাগির ঘটনা ঘটেছে’।

লিখিত অভিযোগে ভুক্তভোগী ওই শিক্ষার্থী বলেন, পাবলিক বাসে সরাসরি ধর্ষণের হুমকি দেওয়া হয়েছে।

অভিযোগ থেকে জানা গেছে, শনিবার (২০ নভেম্বর) শনির আখড়ায় ওই শিক্ষার্থী ঠিকানা পরিবহনের একটি বাসে উঠে। তার কাছে বাস ভাড়া চাওয়া নিয়ে কুরুচিপূর্ণ আচরণ, গালাগাল ও অশোভন আচরণ করা হয়। বাস থেকে নামার সময় তাকে হেনস্তা করা হয়।

বিষয়টি কলেজে জানাজানি হলে এর রেশ অন্যান্য কলেজেও ছড়িয়ে পড়ে। এ ঘটনায় আন্দোলনমুখী হয়ে শিক্ষার্থীরা রাস্তায় নেমে আসেন। রোববার বদরুন্নেসা কলেজের শিক্ষার্থীরা পুরান ঢাকার বকশিবাজার এলাকায় সড়ক অবরোধ করে আন্দোলন করে। শিক্ষার্থী হেনস্তায় জড়িতদের বিচারের দাবি জানিয়ে ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটামও দেন।

পরে র‍্যাব-১০ এর গোয়েন্দা দল অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত ঠিকানা পরিবহনের চালক মো. রুবেল ও হেলপার মো. মেহেদী হাসানকে আটক করে।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে শিক্ষার্থীর সঙ্গে অশোভন আচরণের কারণ সম্পর্কে আটক চালক-হেলপার জানান, ঠিকানা পরিবহনের মালিকের কাছ থেকে দৈনিক তিন হাজার টাকা দেওয়ার প্রতিশ্রুতিতে বাসটি নেন তারা। তিন হাজারের বেশি টাকা হলে সেটা নিজেদের মধ্যে অর্ধেক হিসেবে ভাগ করে নেন চালক রুবেল ও হেলপার মেহেদী। এজন্য তারা হাফ ভাড়া নিতে চাইতেন না। কলেজ এলাকায় প্রতিনিয়ত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে তর্ক-বিতর্কে জড়াতেনও। ভাগে দৈনিক দেড় থেকে দুই হাজার টাকা পেতেই হাফ ভাড়া নিতে চাইতেন না তারা।

এই জাতীয় আরো খবর

Back to top button