বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট, ২০২০

শ্রীপুরে অসহায় কর্মহীন মানুষের পাশে জহিরুল ইসলাম জহির সরকার

Zahirul Islam Zahir Sarkar is by the side of helpless unemployed people in Sreepur

গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলা বরমী ইউনিয়নের করোনা সংকট সময়ে লক ডাউন ঘোষনার পর থেকেই বরমী ইউপির প্রতিটি ওয়ার্ডে কর্মহীন হয়ে পড়া মানুষের খাদ্যাভাব নিরসনে বাড়ী বাড়ী গিয়ে হতদরিদ্রদের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করে যাচ্ছেন শ্রীপুর উপজেলার বরমী বাজার বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক,বরমী নাগরিক হাসপাতালের ডিরেক্ট জহিরুল ইসলাম জহির সরকার।

জানা গিয়েছে তিনি, নিজ তহবিল থেকে বরমী ইউনিয়নের খেটে খাওয়া মোট দুই হাজার পরিবারের এর অধিক গরিব দুঃখীদের মাঝে চাল, ডাল, আলো সহ প্রায় ৪ রকমের কাঁচা সবজি বিতরণ করে সর্বত্রে প্রশংসা কুড়িয়েছেন।

এদিকে, প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস দিন দিন ভয়াবহ রূপ নিচ্ছেন। বাড়ছে লকডাউনের প্রতি কড়া নজরদারি। কঠোর হচ্ছে প্রশাসন। ফলে কর্মহীন হয়ে বিপাকে পড়ছেন খেটে খাওয়া নিম্নআয়ের মানুষ সহ মধ্যবিত্তরাও।

তাই মাতবতার কল্যাণে ঘর-বন্দী কর্মহীন মানুষের পাশে দাড়ালেন। বরমী বাজার বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক জহিরুল ইসলাম জাহির সরকার ও নাগরিক হাসপাতালের মালিক এবং

তার ফেসবুক আইডিতে পাবলিশ করা একটি পোস্ট সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। যা অনরুপ তুলে ধরা হলো। প্রিয় সস্মানিত বরমী ইউনিয়নবাসী আসসালামু আলাইকুম।

করোনা পরিস্থিতির কারনে যাদের ঘরে খাবার নেই, লোক লজ্জার কারনে কোন জনপ্রতিনিধি বা দানশীল ব্যক্তির নিকট থেকে ত্রাণ বা আর্থিক সহায়তা নিতে পারছেন না।

এ রকম কেউ থাকলে আমার সাথে যোগাযোগ করুন। কথা দিলাম ছবি তো দূরের কথা আপনার পরিবার ও জানবেন না। বর্তমানে যে সকল ব্যাগ ভর্তি খাদ্য সামগ্রী বিতরণ হচ্ছে সেরকম ব্যাগ ভরে নয়।

আপনার পরিবারের প্রয়োজনমতো আপনি কিনে নিয়ে যাবেন। আপনার পরিবার মনে করবে প্রতিদিনের মত নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রী বাজার থেকে নিয়ে আসলেন।

এইটা আমার নিজ ব্যক্তিগত তহবিল থেকে সামর্থ্যানুযায়ী অসহায়দের কল্যাণের জন্য। দান হবে গোপনে প্রকাশ্যে নয়। মানুষ মানুষের জন্য। আমার প্রথম কাজ মানবতার। বাড়িতে থাকুন, সুস্থ থাকুন অন্যকেও বাঁচাতে সহযোগিতা করুন।

এ বিষয়ে, জহিরুল ইসলাম জহির সরকার এর
সাথে ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, গরিব অসহায়দের মাঝে শুধুমাত্র অর্থ সম্পদ বিলিয়ে দেয়ার নামই দান নয়, প্রতিটি ভালো কাজই একটি দান। সাময়িক পরিস্থিতে যে ব্যক্তি অতি গোপনে দান করবে তার জন্য রয়েছে অনেক বড় নিয়ামাত।

 

সে ক্ষেত্রে গোপনীয়তা অবলম্বন করে নিজ সাধ্যানুযায়ী অসহায়দের পাশে থাকার প্রচেষ্টা মাত্র। এবং এটি অব্যাহত থাকবে ইনশাআল্লাহ। তাছাড়া কোটি টাকার সম্পদ নিয়ে যারা আত্মগোপনে আছেন তাদেরকে এই দুর্যোগপূর্ণ সময়ে অসহায়দের পাশে দাড়ানোর অনুরোধ করছি।

মানব সেবার ধারাবাহিকতায় প্রতিনিয়ত সময়ে মানুষের খোজখবর নিয়ে অসহায় মানুষদের মাঝে খাবার তুলে দেন।রাতের বেলায় মানুষের বাডি বাডি গিয়ে খোজ নেয়,তাদের বাডিতে চুলায় আগুন জ্বলেছে কিনা? তারা দুমুটু ভাত খেয়েছে কিনা।

জহিরুল ইসলাম জহির বলেন,আমার এলাকার মানুষ না খেয়ে তাকলে আমার গলা দিয়ে কিছু নামে না।।তারা আমার ভাই,মা,বোন আপনজন,তাদের নিয়েই আমি বাছতে চাই।তাদের মুখে আহার তুলে দিয়েই তারপর আমি ভাত খায়। প্রসংগত গতকাল

এলাকার লোকজনের সাথে কথা বলে যানা যায়,তিনি আসলেই এলাকার মানুষের জন্য কাজ করতেছেন,তাদের বিপদে এগিয়ে যাচ্ছেন,তাদের পাশে দাডাচ্ছেন,তাদের মুখে আহার তুলে দিচ্ছেন।দল- বল নির্বিষেশে সবাইকে একসাথে মানুষের পাশে দাডানোর আহব্বান করেন তিনি।

আবুসাঈদ শ্রীপুর( গাজীপুর) প্রতিনিধি

0Shares